১০ বিষয় যা মেয়েরা গোপনে করেন কিন্তু মানতে চান না

মেয়েদের তুলনায় ছেলেরা অনেক বেশি অকপট। অন্তত বন্ধুমহলে অনেক কথাই বিনা দ্বিধায় মেনে নিতে পারেন তাঁরা। এখন এই কথা শুনে বিতর্ক উঠতেই পারে। রে রে করে তেড়েও আসতে পারেন মহিলারা। তবে মানুন আর না মানুন এমন বেশ কিছু বিষয় কিন্তু রয়েছে যা বেশিরভাগ মেয়েরাই গোপনে করেন। কিন্তু কিছুতেই মানতে চান না। তারই কয়েকটি রইল:

১. স্তনের আকার নিয়ে মাথা ঘামানো: নিজেকে আকর্ষণীয় করে তুলতে অনেক মহিলা প্যাডেড ব্রা ব্যবহার করেন। কিন্তু খুব ঘনিষ্ঠ মহলেও তা লুকিয়ে রাখেন।

২. অন্য মেয়েদের দেখা: মুখে যতই অস্বীকার করুক না কেন আড় চোখে অন্য মেয়েদের জরিপ করা মেয়েদের স্বভাব।

৩. পার্টনারকে চোখে চোখে রাখা: যতই নিজেকে খোলামেলা মনের মানুষ হিসাবে গণ্য করুক না কেন। পার্টনার যদি অন্য কোনও বান্ধবীর সঙ্গে একটু বেশি ঘনিষ্ঠতা দেখান তাহলে গা চিরবির করবেই।

৪. যৌন তৃপ্তি: হ্যাঁ গোপনেই। ছেলেরা এই ব্যাপারটা নিয়ে নিজেদের মধ্যে ঠিক যতটা খোলামেলা। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মেয়েরা ঠিক উল্টো। যৌন তৃপ্তির জন্য স্বমেহন মেয়েরা নিজ মুখে মানতে চান না।

৫. নিজেকে নগ্ন দেখা: আয়নার সামনে গোপনে নগ্ন অবস্থায় নিজেকে দেখতে প্রায় সব মহিলাই পছন্দ করেন। এমনকী এই অবস্থায় আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নাচতেও ভালবাসেন তাঁরা। নিজেকে ভালবাসাতো ভালই।

৬. ছেলেদের এড়িয়ে চলা: যে ছেলেটিকে আসলে একজন মেয়ে ভীষণ পছন্দ করেন, চেষ্টা থাকে তাঁকে এড়িয়ে চলার। তবে চোখাচোখি না হলেও তাঁর দিকেই কিন্তু আগাগোড়া লক্ষ করে যান মেয়েটি। কেন? অবশ্যই ছেলেটি তাঁর এড়িয়ে চলাটাকে গুরুত্ব দিচ্ছে কি না তা যাচাই করার জন্য। তবে তা স্বীকার করেন না।

৭. গোসল না করা: ছেলেরা কিন্তু এই বিষয়েও ভীষণই অকপট। তবে সচরাচর মেয়েরা কিছুতেই মানতে চান না যে আজ গোসল করা হয়নি।

৮. জোর করে বলা: সে কোনও বাচ্চাই হোক বা কুকুরছানা দেখতে হয়ত মোটেই তেমন ভাল লাগছে না। তবু মনের উপর জোর করে ‘ভীষণ কিউট’ কিন্তু বলতেই হবে তাঁকে।

৯. আয়না প্রেম: মেয়েরা একটু আয়না প্রিয় হয় বটে। তাতে অবশ্য ক্ষতি কিছু নেই। সে রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময়ই হোক বা বাড়িতে। কাজের ফাঁকে বারবারই আয়নায় নিজেকে একটু দেখে নেন।

১০. অপরিষ্কার জামা পরা: না ধুয়ে একই জামা দু’বারের বেশি যে পরলেও তা কোনও ভাবেই জানান না। এর জন্য অবশ্য প্রয়োজনে একাধিকবার সুগন্ধী ব্যবহার করে থাকেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *